Pages Menu
TwitterRssFacebook
Categories Menu

Posted by on Oct 29, 2015 in ছোট্টমনি, জেনে রাখা ভাল |

এক থেকে ছয় মাস বয়সের শিশুদের ব্যায়াম নিয়ে কিছু কথা

এক থেকে ছয় মাস বয়সের শিশুদের ব্যায়াম নিয়ে কিছু কথা

বেশ কিছুদিন ধরেই মায়েদের চাহিদা ছিলো ছোট শিশুদের ব্যায়াম নিয়ে তথ্য দেওয়ার। শিশুর বয়স যাই হোক ছোটবেলা থেকেই শিশুকে নানা রকম ব্যায়াম করানো শিশুর শরীর ঠিক রাখতে সাহায্য করবে। খুব স্বাভাবিকভাবেই এসব ব্যায়ামের কোনটাই বেশি ভারী হবেনা যেহেতু এসময় শিশুর শরীর খুব নরম ও সংবেদনশীল থাকে। কি ধরণের ব্যায়াম এইসময় করাতে পারেন আপনার সন্তানকে? চলুন এ সম্পর্কে কিছু জেনে নেই।
১। শিশুকে হাতের গ্রিপ শেখানোঃ শিশু যাতে বিভিন্ন ছোট ছোট জিনিস হাতের মুঠোয় শক্ত করে ধরতে পারে তার জন্য শিশুকে গ্রিপ শেখানর ব্যায়াম করানো যেতে পারে। এতে শিশুর তার হাতের কাজ খুব ভালোভাবে শিখতে পারবে। গ্রিপ শেখানো জন্য শিশুকে বিছানায় শুইয়ে দিন, আপনার আঙ্গুল শিশুর হাতের মুঠোয় রাখুন। শিশু যাতে আঙ্গুল হাতের মুঠোয় ভালোভাবে রাখতে পারে তারজন্য অন্য আঙ্গুলগুলো দিয়ে শিশুর হাতের মুঠো চেপে রাখুন। এভাবে কিছুক্ষন রেখে ছেড়ে দিন। তারপর আপনার সন্তান সহজেই কিছুদিনের এটি শিখে যাবে। দুই হাত দিয়ে দিনে পাঁচবার এই গ্রিপ ধরিয়ে নিতে শিশুকে সাহায্য করুন।
২। চেস্টক্রসঃ
শিশুর শরীর ঠিক রাখার জন্য আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যায়াম হলো চেস্টক্রস। এই ব্যায়ামের জন্য শিশুকে আগে গ্রিপ শিখিয়ে নিন। তারপর শিশুকে শুইয়ে দিয়ে তার দুই হাত প্রসারিত করে নিন। তারপর এক হাত অপর প্রান্তের বুকের দিকে স্পর্শ করিয়ে দিন। এই ব্যায়ামটি খুব আস্তে আস্তে করুন আর খুব সাবধানে করুনযাতে শিশু কোনভাবেই ব্যাথা না পায়। এই ব্যায়ামটি শিশুকে প্রতিদিন পাঁচবার করাতে পারেন। এভাবে শিশুর হাত মাথা পর্যন্ত নিয়েও ব্যায়ামটি করাতে পারেন।
৩। বাইসাইকেলঃ
শিশুর জন্য মজার একটি ব্যায়ামের নাম বাইসাইকেল। শিশুর তিন থেকে চার মাস বয়স থেকে এই ব্যায়াম করাতে পারেন। শিশুকে শুইয়ে দিয়ে তার পা দুটি আপনার হাতে নিন। তারপর তার পা দুটি আস্তে আস্তে সাইকেল চালানোর মত করে ঘোরাতে রাখুন। এতে শিশুর পায়ের কাজ বৃদ্ধি পাবে। একাধারে তিনবারের বেশি এই ব্যায়াম করবেন না এবং ব্যায়ামের পর শিশুর পা ভালোমতো ঝেড়ে নিতে দিন।